গাংনীতে মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুতে বিএনপি অফিস ভাংচুর সাংবাদিকসহ আহত- ৫

Read Time:5 Minute, 46 Second

মোঃ আক্তারুজ্জামান মেহেরপুরের গাংনীতে বিএনপি ও আওয়ামীলীগের রাজনৈতিক সহিংসতায় আহত আওয়ামীলীগ নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমানের মৃত্যুতে ৫সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে গাংনীতে আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ সংগঠন সমুহু এক মিছিল বের করে। মিছিলটি গাংনী বিএনপি অফিসে হামলা চালায়। তারা অফিসের চেয়ার টেবিল ও দু’টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে। এসময় সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে ছাত্রলীগ কর্মীরা গাংনী প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক সাইদুর রহমান সাবু ও বিএনপির ৪ নেতা কর্মীকে পিটিয়ে আহত করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শহরে ব্যাপক পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

জানাযায়, গত ২৪ আগষ্ট সকালে গাংনীর আমতৈল বাজারে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে বৈঠক শেষে বাড়ি ফেরার পথে বিএনপি নেতা ও ষোলটাকা ইউপি চেয়ারম্যান ছাবদাল হোসেন কালু ও তার লোকজন আওয়ামীলীগ নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমানকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে প্রথমে গাংনী  ও পরে ঢাকা পিজি হা্সপাতালে প্রেরণ করা হয়। প্রয়োজনীয় চিকিৎসার পরও তার অবস্থার কোন পরিবর্তন না হওয়ায় ৫সেপ্টেম্বর সোমবার ভোর রাতে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে ৫সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে গাংনী শহরে আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ সংগঠন সমুহু এক বিশাল মিছিল বের করে। গাংনী পৌর মেয়র আহম্মেদ আলীর নেতৃত্বে মিছিলটি গাংনী বিএনপি অফিসে হামলা চালায়। সেসময় এমপি আমজাদ হোসেন অফিসে নেতা কর্মীদের সাথে বৈঠক করছিলেন। এমপি আমজাদ হোসেন জানান, হঠাৎ আওয়ামীলীগের লোকজন তার অফিসে ঢুকে ইটপাটকেল ছুড়ে ও টেবিল চেয়ার ভাংচুর করে। এসময় গাংনী যুবদলের সেক্রেটারী বুলবুল, ছাত্রদল কর্মী সুজন, বিএনপি নেতা রবিউল ও বাবলু আহত হয়। হামলা কারীরা দু’টি মোটর সাইকেলও ভাংচুর করে।

অপরদিকে হামলা ও ভাংচুরের সংবাদ সংগ্রহ ও ছবি ক্যামেরা বন্দী করতে গেলে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা গাংনী প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ও দৈনিক জনতার গাংনী প্রতিনিধি সাইদুর রহমান সাবুকে পিটিয়ে আহত করে তার ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। সংবাদ পেয়ে গাংনী থানা পুলিশ ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি  নিয়ন্ত্রনে আনে। অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সাংবাদিক আহত হওয়ার ঘটনায় গাংনী প্রেস ক্লাবে তাৎক্ষনিক ভাবে এক জরুরী বৈঠকের ডাক দেয়া হয়। বৈঠকে সাংবাদিক নির্যাতনকারীর গ্রেফতার ও দৃষ্টামত্ম মূলক শাস্তির দাবী জানানো হয়।এ ঘটনায় গাংনীনিউজ পরিবার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

সাংবাদিক আহত ক্যামেরা ও মোবাইল ছিনত্মায়ের ব্যাপারে গাংনী পৌর মেয়র আহম্মেদ আলী দুঃখ প্রকাশ করে জানান, সাংবাদিক পেটানোর ঘটনা ছিলো অনাকাংখিত। যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিষয়ে দলীয় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

মেহেরপুরের সহকারি পুলিশ সুপার এ এস পি সাহেদ আকবর জানান,মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমানের মৃত্যুর সংবাদ গ্রামের বাড়ি মানিকদিয়া পৌছানোর পর সেখানে উত্তেজনা শুরু হয়। তাৎক্ষনিকভাবে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়। যাতে রাতে জানাজার সময় কোন ধরনের বিশৃংখলা না ঘটে। পরিস্থিতি এখন শান্ত।
গাংনী থানার ওসি জানান,গাংনী শহরের পরিস্থিতি এখন শান্ত। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে দেওয়া একটি এজাহারের কপি আমার হস্তগত হয়েছে।

মেহেরপুরের পুলিশ সুপার শাহরিয়ার হোসেন জানান, মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমানের মৃত্যুর পর আমতৈল ও গাংনী শহরে অপ্রিতীকর ঘটনা ঘটার আশংকা ছিলো সেহেতু প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তবে গাংনীতে বিএনপি অফিস ভাংচুর ও সাংবাদিক আহতর ঘটনা দুঃখ জনক। তবে যদি কেউ অভিযোগ করে তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

0 0
Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleppy
Sleppy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *